আজ: শুক্রবার | ১৪ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৪শে জিলহজ, ১৪৪১ হিজরি | সন্ধ্যা ৬:০১
বন্দর

ডিআরএসে পরিবর্তন চান টেন্ডুলকার-লারা

বাংলাদেশ বার্তা | ১২ জুলাই, ২০২০ | ৯:২৫ অপরাহ্ণ

মানুষ মাত্রই ভুল। নিরপেক্ষ সিদ্ধান্ত দেয়ার ক্ষেত্রে প্রায়ই ভুল করে থাকেন আম্পায়াররা। তাতে হতাশ হতে হয় মাঠের দলকে। তাই এই ভুলের মাত্রা কমাতে ডিআরএস (ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম) নিয়ম চালু করে আইসিসি। যেখানে প্রযুক্তির আশ্রয় নিয়ে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আবেদন করতে পারবেন ক্রিকেটাররা। কিন্তু এখানেও গলদ দেখছেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার।

নিয়ম অনুযায়ী, এলবিডব্লিউয়ের ক্ষেত্রে মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত রিভিউয়ে বদলে দিতে হলে বলের ৫০ ভাগের বেশি অংশ লাগতে হয় স্টাম্পে। বলের অর্ধেকের বেশি অংশ স্টাম্পে না লাগলে টিকে যায় মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত। কিন্তু এমন নিয়মে খুব একটা সন্তুষ্ট হতে পারছেন না টেন্ডুলকার। তার মতে, বল উইকেটে হিট করলেই আউট দিয়ে দেয়া উচিত।

টুইটারে টেন্ডুলকার বলেন, ‘রিভিউয়ের আইসিসির যে নিয়ম বেশ কিছুদিন ধরে আসছে, সেটির সঙ্গে আমি একমত নই। কেউ যখন রিভিউ নেন, তার মানে মাঠের সিদ্ধান্ত নিয়ে তিনি অখুশি। এটিই রিভিউ নেয়ার একমাত্র কারণ। তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে যখন পাঠানো হয়, তখন প্রযুক্তির ওপরই সবকিছু ছেড়ে দেয়া উচিত। অনেকটা টেনিসের মতো, হয় বাইরে নয় ভেতরে। মাঝামাঝি বলে কিছু নেই। বলের কত শতাংশ স্টাম্পে লাগছে, তা ব্যাপার নয়।

রিভিউয়ে যদি দেখা যায়, বল স্টাম্পে লাগছে, তাহলে আউট দেয়া উচিত, মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত যেটাই হোক। এটিই তো প্রযুক্তি ব্যবহারের উদ্দেশ্য। আমি জানি, অনেকেই বলেছেন, প্রযুক্তি মাঝেমধ্যে শতভাগ ঠিক নয়। তবে মানুষও তো সবসময় শতভাগ সঠিক নয়! প্রযুক্তি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিলে এটির ওপরই নির্ভর করা উচিত।’

টেন্ডুলকারের সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন আরেক কিংবদন্তি ক্রিকেটার ব্রায়ান লারাও। তিনি বলেন, ‘তোমার কথায় যুক্তি আছে। কারণ একই ডেলিভারির ক্ষেত্রে, আম্পায়ার আউট দিলে রিভিউয়ের সিদ্ধান্ত একরকম হয়, আউট না দিলে আরেকরকম। আমার মনে হয়, এটি (রিভিউ) যখন ক্রিকেটের অংশই হয়ে উঠেছে, আমি এটি রেখে দেয়ার পক্ষে। তবে এটিকে আরো নিখুঁত করে তোলা উচিত বা যতটা সম্ভব, নিখুঁতের কাছাকাছি।’





এই বিভাগের আরো সংবাদ




Leave a Reply

%d bloggers like this: