আজ: বৃহস্পতিবার | ২১ জানুয়ারি, ২০২১ | ৭ মাঘ, ১৪২৭ | ৭ জমাদিউস সানি, ১৪৪২ | সকাল ১১:১০

সংবাদ দেখার জন্য ধন্যবাদ

Home » স্বাস্থ্য » অ্যান্টিবডির আয়ু মাত্র ৭ মাস!

ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা বিধবা প্রতিবন্ধী নারী

০৮ জানুয়ারি, ২০২১ | ২:৩৩ অপরাহ্ণ | বাংলাদেশ বার্তা | 313 Views

বগুড়ার শিবগঞ্জে ধর্ষণের শিকার শারীরিক প্রতিবন্ধী বিধবা নারী (২৫) অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় একই এলাকার ঘরজামাই বাদল মিয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষণের শিকার ওই নারী ৭ মাসে অন্তঃসত্ত্বা।

ভুক্তভোগী বিধবা নারীর মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত ঘরজামাই বাদল মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। বাদল গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার বাশাবাড়ি গ্রামের রহিম উদ্দিনের ছেলে। শিবগঞ্জ উপজেলায় বিয়ে করে তিনি ঘরজামাই থাকতেন।

এর আগে বুধবার রাতে শিবগঞ্জ থানায় ধর্ষণ মামলা করেন ভুক্তভোগী নারীর মা। মামলায় স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ চারজনকে আসামি করা হয়। অভিযুক্ত ইউপি সদস্যর নাম জাহিদুল ইসলাম। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ- তিনি ধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন। অন্য দুজনের নাম গ্রেপ্তারের পর জানানো হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

ধর্ষণের শিকার ওই নারীর মা বলেন, আমি থানায় অভিযোগ দেওয়া পর থেকেই ইউপি সদস্য জাহিদুল ও তার লোকজন আমাকে ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন, আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

ঘটনার এতদিন পরে মামলা করার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কাউকে কিছু বললে, আমাকে মেরে ফেলবে বলে হুমকিও দিয়েছিল বাদল।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের গণকপাড়া গ্রামের প্রতিবন্ধী ওই বিধবার সাত বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের সাড়ে ৫ বছরের মধ্যে তাদের দুটি কন্যাসন্তানের জন্ম নেয়। সুখে শান্তিতে ঘর সংসার করলেও দেড় বছর আগে হঠাৎ করেই তার স্বামী মারা যায়। এরপর হতেই ওই নারী দুই সন্তানকে নিয়ে স্বামীর ঘরেই অবস্থান করছিলেন। এমন সময় হঠাৎ তার ওপর কুনজর পড়ে এলাকার ঘরজামাই বাদল মিয়ার। এর আগেও বাদল একাধিক বিয়ে করেছে। বাদলের বর্তমান স্ত্রী বগুড়া শহরে বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে ঝি-এর কাজ করে। স্ত্রী বাড়িতে না থাকায় একাই থাকত বাদল। মাঝে মধ্যে সে বিধবা প্রতিবন্ধী নারীর বাড়িতে যাতায়াত করত। এর মধ্যে বাদল ভয়-ভীতি দেখিয়ে প্রায়ই ধর্ষণ করত প্রতিবন্ধী ওই নারীকে। লাগাতার ধর্ষণের ফলে প্রতিবন্ধী নারী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে ভয়ে কৌশলে পালিয়ে যায় বাদল। পরে প্রতিবন্ধীর মা বাদী হয়ে ইউপি সদস্যসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

শিবগঞ্জ থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান বলেন, মামলার পর অভিযুক্ত ধর্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।



Comment Heare

Leave a Reply

Top
%d bloggers like this: