আজ: মঙ্গলবার | ১৩ এপ্রিল, ২০২১ | ৩০ চৈত্র, ১৪২৭ | ৩০ শাবান, ১৪৪২ | সকাল ৭:২৫

সংবাদ দেখার জন্য ধন্যবাদ

Home » জাতীয় » মিতা হকের মৃত্যু শোকাহত রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী

লকডাউন: কলাপাড়ায় ইউএনও ‌‘অবরুদ্ধ’

০৬ এপ্রিল, ২০২১ | ৩:৩৩ অপরাহ্ণ | বাংলাদেশ বার্তা | 165 Views

কুয়াকাটায় সরকার ঘোষিত নির্দেশনা বাস্তবায়নে এসে কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তোপের মুখে পড়েছে। এ সময় ইউএনও গাড়ীসহ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। এ ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় জনতার ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশের সহায়তায় মুক্ত হন ইউএনও।

সোমবার রাত পৌনে ৮টার দিকে শুরু হওয়া এ ঘটনায় টুরিস্ট পুলিশের পাশাপাশি মহিপুর থানার ওসির নেতৃত্বে একদল পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়। এদিকে পুলিশী সহায়তায় অবরুদ্ধ ইউএনও কুয়াকাটা টুরিস্ট পুলিশের অফিসে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন বলে ইউএনও দাবি করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণে চলমান লকডাউন কার্যকর ও সচেতনতামূলক প্রচারণার জন্য কলাপাড়ার ইউএনও আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদুল হক কুয়াকাটা চৌরাস্তায় কার্যক্রম পরিচালনা করছিলেন। এ সময় একটি ‘তালাশ’ পত্রিকার স্টিকার লাগানো মোটরসাইকেল চালিয়ে ইলিয়াস শেখ নামে এক যুবক সেখান দিয়ে যাওয়ার সময় ইউএনও তাকে থামিয়ে পরিচয় জানতে চান।

ইলিয়াস শেখ সাংবাদিক বলে নিজের পরিচয় দিলে ইউএনও বেধড়ক মারধর করেন। ইউএনও’র নির্দেশে তিন পুলিশ সদস্য ও এক আনসার সদস্য ওই যুবককে এলোপাথাড়ি পেটাতে থাকেন। ইউএনও নিজেও কিল-ঘুষি ও লাথি মারেন। এমন নির্যাতন দেখে স্থানীয়রা উত্তেজিত হয়ে ইউএনও’র বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখানো শুরু করেন। তারা ইউএনওকে সেখানে প্রায় আধা ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে মহিপুর থানা পুলিশ ও কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশ অবরুদ্ধ ইউএনওকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়। রাত ৯টার দিকে পুলিশ উত্তেজিত জনতাকে মাইকিং করে সরিয়ে দেওয়ার পর পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এসময় কুয়াকাটা পৌর মেয়র আনোয়ার হাওলাদার, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র আ. বারেক মোল্লাসহ পৌর পরিষদের কাউন্সিলররা পুলিশের পাশাপাশি বিক্ষুব্ধ জনতাকে শান্ত করার চেষ্টা করেন।

স্থানীয়রা ইলিয়াসকে উদ্ধার করে কুয়াকাটা ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই তাকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শেবাচিমে চিকিৎসাধীন ইলিয়াস শেখ বলেন, ‘আমি মোটরসাইকেল চালিয়ে কুয়াকাটা চৌরাস্তায় এলে ইউএনও সাহেব আমাকে থামিয়ে পরিচয় জানতে চান। পরিচয় দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে মোটরসাইকেল থেকে আমাকে টেনে নামিয়ে মারধর করেন।’

মহিপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, ‘খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে উত্তেজিত জনতাকে সরে যেতে অনুরোধ করলে তারা ফিরে যান। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক ও নিয়ন্ত্রণে রয়েছেন।’

ইউএনও আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদুল হক বলেন, ‘চলমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার ঘোষিত কঠোর নিষেধাজ্ঞা বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরি করতে গেলে ইলিয়াস শেখ বাধা প্রদানসহ আমাকে লাঞ্ছিত করেন এবং গাড়িসহ আমাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে।’



Comment Heare

Leave a Reply

Top
%d bloggers like this: