আজ: শুক্রবার | ৫ মার্চ, ২০২১ | ২০ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ২০ রজব, ১৪৪২ | দুপুর ১২:৫৮

সংবাদ দেখার জন্য ধন্যবাদ

Home » আইন আদালত » না’গঞ্জের বার ভবন পরিদর্শনে উপ-সচিব

সাবেক স্বামীর কাছে ফিরতে বর্তমান স্বামীকে খুন

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ১২:৪০ অপরাহ্ণ | বাংলাদেশ বার্তা | 255 Views

ময়মনসিংহে চাঞ্চল্যকর আশিকুর রহমান আশিক হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ। সাবেক স্বামীর কাছে ফিরতেই বর্তমান স্বামীকে খুন করেন স্ত্রী।

জানা যায়, জাকিয়া সুলতানা নামের ওই নারী সাবেক স্বামী রুবেল মিয়াকে ডিভোর্স দেন। এরপর প্রেমের ফাঁদে ফেলে আশিককে বিয়ে করেন তিনি। বিয়ের দুই বছরের মাথায় ফের সাবেক স্বামীর সঙ্গে তার সম্পর্ক হয়, তার কাছে চলে যেতে চান। কিন্তু আশিক তাকে ছাড়তে রাজি ছিলেন না। এ কারণে সাবেক স্বামীকে নিয়ে বর্তমান স্বামীকে খুন করেন জাকিয়া।

বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) এক আসামি আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

পুলিশ জানায়, জাকিয়া সুলতানা নগরীর কেওয়াটখালী এলাকার আবদুর রউফের মেয়ে। আগের স্বামী বলাশপুর এলাকার রুবেল মিয়াকে ডিভোর্স দেন। এরপর বছর দুয়েক আগে একই এলাকার আশিককে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করতে বাধ্য করেন জাকিয়া। এরমধ্যেই ফের স্বাবেক স্বামী রুবেলের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান তিনি। জাকিয়াকে ছেড়ে দিতে আশিককে নানাভাবে অনুরোধ করছিলেন রুবেল। আশিক রাজি হননি। সেই ক্ষোভ থেকে আশিককে হত্যার পরিকল্পনা করেন তারা। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় আশিককে কেওয়াটখালী রেললাইনের পাশে নিয়ে যান জাকিয়া। সেখানে রুবেল অপেক্ষা করছিলেন। নির্জন স্থানটিতে যাওয়ার পর আশিককে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করেন রুবেল। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে সেখানে ফেলে যান তারা। পরে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। সন্দেহভাজন হিসেবে জাকিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেন তিনি।

ঘটনার পরের দিন আশিকের বাবা কোতোয়ালি থানায় জাকিয়া ও রুবেলকে আসামি করে মামলা করেন। ওই মামলায় সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে জাকিয়াকে আদালতে সোপর্দ করা হয়। জাকিয়ার বিরুদ্ধে মাদকের মামলাও রয়েছে।

ঘটনার পর থেকে রুবেল পলাতক ছিলেন। বৃহস্পতিবার ভোরে তারাকান্দা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। দুপুরে তাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে কেওয়াটখালী এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। পরে তার দেয়া তথ্যে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করা হয়। ওই দিনই একশ টাকা দিয়ে ছুরিটি কিনেছিলেন রুবেল।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রুবেল ময়মনসিংহ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয় আদালত। কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ফারুক হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতের ভাই ফরহাদ আলম সম্রাট হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।



Comment Heare

Leave a Reply

Top